valobashar koster kobita bangla

valobashar koster kobita bangla


valobashar koster kobita bangla,premer kobita bangla lekha,premer kobita in bengali font,premer kobita bangla photo,valobashar kobita in bengali,বাংলা প্রেমের কবিতা pdf,বাংলা প্রেমের কবিতা জয় গোস্বামী,বাংলা প্রেমের কবিতাসমগ্র,বাংলা প্রেমের কবিতা রবীন্দ্রনাথ,বাংলা প্রেমের কবিতা হুমায়ূন আহমেদ,


ভালোবাসি বলে মনে থাকো আজও 

অদ্বৈত মারুত


তোমাকে এখনো মনে পড়ে যায় বলে ভাবি,

ভালোবাসা বুঝি মরে না কখনই

না মরার ভেতর দিয়ে বারে বারে

ফিরে আসে ভালোবাসা আজও।

 

অথচ গভীর ক্ষত নেই দুজনের কারো

অথবা উজ্জ্বল স্মৃতি; মনে রাখবার মতো

হাত দুটো ধরে বসিনি মুখোমুখি কেউ

বলা হয়নি ভালোবাসি— কেবল তোমাকেই।

 

তবু মনে পড়ে যায়

তবু মনে হয় তোমাকেই ভালোবেসেছিলাম।

এত বেশি ভালোবেসেছিলাম

এত এত বেশি,

ডানা দুলে উড়ে যাওয়া পাখি ভাবি তুমি

টুপ করে পড়ে যাওয়া শিশির ভাবি তুমি

জ্বলন্ত আগুন তুমি ভেবে পুড়েছি কতবার!

 

নিস্তরঙ্গ হিম অন্ধকার তুমি ভেবে

কত কত বিকেলের একান্ত একাকিত্বে

কেবল তোমার ভেতরে আমি ঢুকে দিয়ে

চুপচাপ থেকেছি

ডুবোজাহাজের মতো

খুঁজেছি কিছু বেদনার দিন

ফুল; প্রজাপতির ডানা রঙিন

লাল কাঁকড়া; রিকশা দৌড়— অমলিন…

 

আসলে আমাদের কোনো স্মৃতিই নেই

পরিচয়ই হয়নি সাপলুডু অথবা মনপাঠে।

তবু মনে পড়ে যায়,

তবু তোমাকে মনে পড়ে বারবার

ভালোবাসি বলেই মনে পড়ে আজও।

 

তোমারও কি তাই!

 

ধানের ধারাপাত

অদ্বৈত মারুত

তুমি কড়াই থেকে সদ্য নামানো সিদ্ধ ধান

বুক অথবা মুখ ফেটে পড়ে আছো চুপচাপ।

রোদে শুকানোর পর ডালা ভরে চাতাল

থেকে তুলে নেব বস্তায় ভরে

                             নিয়ে যাব ধানকলে

একে একে ছাড়িয়ে নেব পুরোটা বসন।

 

চাল হবার পর রান্নায় যাবে তুমি

ফুলে উঠবে— যেমন ওঠে সমুদ্রে ঢেউ।

তোমাকে গ্রাস করে আরামে ঘুম দেব

ঢেকুর তুলে তোমার দেহ নিয়ে আলাপ

করব আর সব খাদ্যগ্রহণকারীর সাথে।

বর্জ্যত্যাগেই সুখ ভেবে আহা, তোমাকেই

প্রতিদিন খেতে থাকব আঁশের আশায়।

 

ধান, তুমি আচানক করো না অভিমান

পরিমাণ না ভেবে এভাবে বসন খোলায়;

গোলায়ও তো খুলে খায় ইঁদুর অথবা কীট

মিটমিট করে যে হাসে কিশোর এবেলায়

তারও মুখে পুরে দিও সুডৌল স্তন্য বোঁটা

 

গ্রহণ শেষে সেও তো পাখি হবে একদিন!

 


তুমি

অদ্বৈত মারুত


তোমার গতি নদীর মতো

আমার ঢিমেতালে

তোমার আকাশ রোদে ভরা

আমি মেঘ আড়ালে।

 

তুমি ওড়ো পাখি হয়ে

তুমি সন্ধ্যাতারা

তোমার প্রদীপ আলো ছড়ায়

বাড়ি দেয় পাহারা।

 

তুমি তুমি তোমার ভেতর

তুমি দিয়ে ভরা

তুমি তবু আমার কাছে

অপ্সরা— অপ্সরা।

 

তোমার সাথে দেখা হলো

কবে যে কোনকালে

যায় না ছোঁয়া তোমার ও ঠোঁট

হাত দুটো বাড়ালে।


শীত এলে মনে পড়ে

অদ্বৈত মারুত


ইরিধান-চারা রোপি, ফলাই পাতা ও ফুলকপি

শোভন সন্ধ্যায় কুয়াশা এসে ঢেকে নিলে মুখ

সুখে জালি লাউ আঁকড়ে ধরি সরল দুই হাতে

ঘোর অমাবস্যায় দেখি বাতাসের তরুণ বুক।

 

বালকের দুপুর চোখ উপচে পড়ে ঘামায় পাতা

আলো পকেটে পুরে পাখি-উচ্ছ্বাস নিয়ে হাঁটি

মৌমাছি নাচানাচি করে, শালিক শোনায় গান

পুকুরে ডুব দিয়ে ওঠে নবীন ব্রায়ের জামবাটি।

 

ঘুড়ি কাটাকাটি— মেঠোপথ— বেণী খোলা চুল

হুলুস্থুলে পাতা আঁকতে থাকে মোহিত সকাল

জাল ফেলে মাছ অঞ্চল তুলে নিই গরম ভাতে

বোকা বোকা ভাব নিয়ে থাকে তপসে বোয়াল।

 

এসব বাহুল্য বাসনা হৃদয়ে নিয়ে শুয়ে থাকি

এসব অসহ্য বেদনা সাইকেল প্যাডেলে ঘোরে

কুয়াশায়— কাঁচাপাকা সড়কে— বুকের গভীরে


তোমার ভেতরে আমি নেই

অদ্বৈত মারুত


চোখে অসহ্য অন্ধকার এসে ডুবিয়ে দিলে তোমাকে

সবকিছু বের করে দেওয়ার বাসনা মনে আসে বলে

বনফুল হয়ে পড়ে লতা, কুয়াশা ধূলি হয়ে মনে বসে

আর সব গাছ হাঁটতে হাঁটতে সাঁতরে বেড়ায় জলে।

 

এমন অন্ধকারে মাঠের সরল ঘাস আগুনের গান গায়

হাওয়ামুখ হেসে গাল বেয়ে পায়ে নামে পিঁপড়ার মতো

লাল শহরের বালিমুখে কালি মেখে উড়ে যায় নদ-নদী

এসব অগণন ঢেউ বুকে নেমে এসে হৃদয়ে বাড়ায় ক্ষত।

 

অন্ধকার ভালোবেসে বুকে নিয়ে পাহাড়ে উঠে যেতে চাই

আগুনের বেলুন উড়িয়ে তার ওড়ার বিভাব দেখে যেতে চাই।


Recent Posts

50% LikesVS
50% Dislikes