premer kobita bangla collection

premer kobita bangla collection


premer kobita bangla collection,bangla valobashar kobita collection,bhalobasar kobita,শ্রেষ্ঠ প্রেমের কবিতা,রোমান্টিক প্রেমের কবিতা,সকালের প্রেমের কবিতা,প্রথম প্রেমের কবিতা,বাংলা প্রেমের কবিতা,রোমান্টিক কবিতা সমগ্র,


হেমন্ত কুয়াশায় – জীবনানন্দ দাশ


হেমন্ত কুয়াশায় – জীবনানন্দ দাশ  সকাল-সন্ধ্যাবেলা আমি সেই নারীকে দেখেছি 

 জেনেছি অনেক দিন- তারপর তবুও ভেবেছি। 

 তারপর ঢের দিন পৃথিবীর সেই শাদা সাধারণ কথা

 ছোট বড় জিনিসের বিস্মরণে ক্রমে ভুলে গেছি।

 আকাশ আমাকে বলেঃ সে না তুমি আত্মসমাহিতি?

 পৃথিবী আমাকে দেখে ভেবে যায়ঃ এর প্রাণে, আহা,

 লাখেরাজ হয়ে পড়ে রয়েছে সততা: 

 যে নারীকে নদীর কিনারে জলে ভালোবেসেছিল 

 সময়ের সুবাতাস মুখ ছঁইয়ে চলে গেলে যদি তার কথা

 ভুরু কোঁচকায়ে ভেবে নিতে হয়, মানবহৃদয় তবে সে কোন রকম।

 হেমন্তের কুয়াসায় বেড়াতে কারু দাবী

 অমল ঋণের মত গ্রহণ করেছি আমি নিতে ভুলে গিয়ে:

 তার ভালোবাসা পেয়ে ভয়াবহভাবে সৎ হয়ে আছি- ভাবি।


  তোমাকেই চাই – হেলাল হাফিজ


 তোমাকেই চাই – হেলাল হাফিজ  আমি এখন অন্য মানুষ ভিন্ন ভাবে কথা বলি 

 কথার ভেতর অকথিত অনেক কথা জড়িয়ে ফেলি 

 এবং চলি পথ বেপথে যখন তখন।

 আমি এখন ভিন্ন মানুষ অন্যভাবে কথা বলি

 কথার ভেতর অনেক কথা লুকিয়ে ফেলি,

 কথার সাথে আমার এখন তুমুল খেলা

 উপযুক্ত সংযোজনে জীর্ণ-শীর্ণ শব্দমালা

 ব্যঞ্জনা পায় আমার হাতে অবলীলায়,

 ঠিক জানি না পারস্পরিক খেলাধূলায়

 কখন কে যে কাকে খেলায়।

 অপুষ্টিতে নষ্ট প্রাচীন প্রেমের কথা যত্রতত্র কীর্তন আমার

 মাঝে মধ্যে প্রণয় বিহীন সভ্যতাকে কচি প্রেমের পত্র লিখি

 যেমন লেখে বয়ঃসন্ধি-কালের মানুষ নিশীথ জেগে।

 আমি এখন অন্য মানুষ ভিন্নভাবে চোখ তুলে চাই

 খুব আলাদা ভাবে তাকাই

 জন্মাবধি জলের যুগল কলস দেখাই,

 ভেতরে এক তৃতীয় চোখ রঞ্জনালোয় কর্মরত

 সব কিছু সে সঠিকভাবে সবটা দেখে এবং দারুণ প্রণয় কাতর।

 আমি এখন আমার ভেতর অন্য মানুষ গঠন করে সংগঠিত,

 বীর্যবান এক ভিন্ন গোলাপ এখন কসম খুব প্রয়োজন।


  হৃদয়ের ঋণ – হেলাল হাফিজ


 হৃদয়ের ঋণ – হেলাল হাফিজ  আমার জীবন ভালোবাসাহীন গেলে 

 কলঙ্ক হবে কলঙ্ক হবে তোর,

 খুব সামান্য হৃদয়ের ঋণ পেলে

 বেদনাকে নিয়ে সচ্ছলতার ঘর

 বাঁধবো নিমেষে। শর্তবিহীন হাত

 গচ্ছিত রেখে লাজুক দুহাতে আমি

 কাটাবো উজাড় যুগলবন্দী হাত

 অযুত স্বপ্নে। শুনেছি জীবন দামী,

 একবার আসে, তাকে ভালোবেসে যদি

 অমার্জনীয় অপরাধ হয় হোক,

 ইতিহাস দেবে অমরতা নিরবধি

 আয় মেয়ে গড়ি চারু আনন্দলোক।

 দেখবো দেখাবো পরস্পরকে খুলে

 যতো সুখ আর দুঃখের সব দাগ,

 আয় না পাষাণী একবার পথ ভুলে

 পরীক্ষা হোক কার কতো অনুরাগ।


  চতুরের ভূমিকা – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়


 চতুরের ভূমিকা – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়  কিছু উপমার ফুল নিতে হবে নিরুপমা দেবী 

 যদিও নামের মধ্যে বেখেছেন আসল উপমা 

 ক্ষণিক প্রশ্রয়-তুষ্টি চায় আজ সামান্য এ কবি,

 রবীন্দ্রনাথেরও আপনি চপলতা করেছেন ক্ষমা।

 যদিও প্রত্যহ আসে অগণিত সুঠাম যুবক

 নানা উপহার আনে সময় সাগর থেকে তুলে

 আমি তো আনি নি কিছু চম্পা কিংবা কুর্চি কুরুবক

 সাজাতে চেয়েছি শুধু স্পর্শহীন উপমার ফুলে।

 আকাশে অনেক সজ্জা, তবু স্থির আকাশের নীল

 সামান্য এ সত্যটুকু, শোনাতে চেয়েছি আপনাকে

 শব্দ আর অলঙ্কারে খুঁজে খুঁজে জীবনের মিল

 দেখিছি সমস্ত সাধ অন্য এক বুকে সুপ্ত থাকে।

 আশা করি এতক্ষণে এঁকেছি আমার পটভূমি।

 যদি অনুমতি হয় আজ থেকে শুরু হোক, তুমি।।


munjatপ্রিয় পাঠকগণ। আসা করি কবিতা গুলি আপনাদের ভালো লেগেছে। যদি ভালো লেগে থাকে। অবশ্যই একটা লাইক দিবেন। এবং বন্ধুদেকেও শেয়ার করবেন। ভালো থাকবেন সুস্থে থাকবেন। এবং সবাইকে ভালো রাখবেন ধন্যবাদ।


NEXT PAGE


 

50% LikesVS
50% Dislikes