Bangla Dhadha question Uttar

Bangla Dhadha question Uttar


সহজ ধাঁধা,নোংরা ধাঁধা,গণিতের ধাঁধাঁ উত্তর সহ,Bangla Dhadha question Uttar,লজিকাল ধাধা,ধাঁধা ছবি,ধাধার বই,হট ধাঁধা উত্তর সহ,ধাঁধা উত্তর সহ ফটো,কয়েকটি ধাঁধা,খারাপ ধাঁধা মিষ্টি উত্তর,গুগলি ধাঁধা প্রশ্ন ও উত্তর,দাদাগিরি প্রশ্ন ও উত্তর,Bangla Dhadha question Uttar,নোংরা ধাঁধা ও উত্তর,Bangla Dhadha question Uttar,


 

বাঘের মত লাফ দেয়, কুকুর হয়ে বসে,

পানির মধ্যে ছেড়ে দিলে সোলা হয়ে ভাসে।

একটি পরিবারে মা-বাবা ও তাদর ৭জন ছেলে আছে॥

প্রত্যেক ছেলের একটি করে বোন আছে॥ 

ওই পরিবারে মোট সদস্য সংখ্যা কত??

বলুনতো এমন কোন সে বস্তু পৃথিবীতে নেই তোমার আমার মুখের কথায় তবু আছে সে-ই।

উত্তরঃ ঘোড়ার ডিম।


দু’অক্ষরে নাম তার বহু লোকে খায় শেষের অক্ষর বাদ দিলে হেঁটে চলে যায়। 

উত্তরঃ পান।


তিন অক্ষরে নাম ব্যঞ্জনে দেয় তাহার প্রভাবে আহা, স্বাদ ভালো হয়। মাথা কেটে গেলে সে যে গণ্য হবে কাঠি পেট কেটে ময়লা সে, নয় পরিপাটি।

উত্তরঃ মশলা।


 দু’অক্ষরে নাম লজ্জা নিবারণী প্রথম অক্ষর বাদ দিলে হয় আমার জননী শেষের অক্ষর বাদ দিলে ভাশুর ঘরণী।

উত্তরঃ জামা।


 আগে যায় ফিরে চায় ওটি তোমার কে ওর শ্বশুরকে আমার শ্বশুর বাবা বলেছে। 

উত্তরঃ।


কৃষ্ণবর্ণ তণুখান গুটি ছয় পা চুপচাপ রক্ত খায় নাহি কাটে রা।

উত্তরঃ উকুন।


প্রাণ নেই বন্ধু নয়, চলে সাথে সাথে আলো পেলে তবে চলে দিনে কিংবা রাতে।

উত্তরঃ ছায়া।


 তিন অক্ষরে নাম তার প্রতি ঘরে পাবে অধ্যক্ষর বাদ দিলে বৎসর বুঝাবে মধ্য অক্ষর গেলে সবার ক্ষতি করে শেষের অক্ষর গেলে সবাই অবস্থান করে।

উত্তরঃ বাসন।


দুই অক্ষরের নাম যার সব যায়গায় রায় প্রথম অক্ষর বাদ দিলে খাবার জিনিস হয়, শেষের অক্ষর বাদ দিলে আপনজন হয়।

উত্তরঃ মাটি।


 দু’অক্ষরের নাম তার সবার ঘরে রয় প্রথম অক্ষর বাদ দিলে খাবার জিনিস হয় শেষের অক্ষর বাদ দিলে জন্মদাতা হয়।

উত্তরঃ।


তিন অক্ষরে নাম তার মেয়েরা গায়ে মাখে প্রথম অক্ষর বাদ দিলে গাছ বেয়ে উঠে মাঝের অক্ষর বাদ দিলে গাছে ফলে থাকে। শেষের অক্ষর বাদ দিলে হাঁটার পথ থাকে। 

উত্তরঃ আলতা।


 বলতে পার কোন সে দেশ সূর্য উঠে না কোন সে দেশে জলও নাই মানুষ থাকে না।

উত্তরঃ সন্দেশ।


 তিন অক্ষর নাম, বাঙ্গালীরা খায় মাঝের অক্ষর গেলেও একই জিনিস হয়, প্রথম অক্ষর বাদ দিলে শীত পোশাক হয় শেষের অক্ষর বাদ দিলে চীনের খাদ্য হয়।

উত্তরঃ চাউল।


চারি দিকে কাঁটা বেত মাথায় মুকুট খান সাহেব। 

উত্তরঃ আনারস।


সুখাদ্য মোটেও না তবু লোকে খায় হুমড়ি খেয়ে অসর্তকে পড়ি এ ধরায় বৃদ্ধরা খায় যদি, করে হায় হায় যুবকে খেলে পরে লাজে মরে যায়।

উত্তরঃ আছার।


ওপার থেকে এলো বুড়ি সাদা কাপড় পরে মহানন্দে বসল খেতে ঘাড় নেড়ে নেড়ে।

উত্তরঃ বক।


 কোন দেশ ঝোলে গাছে কোন দেশ বাজে কোন দেশ বলো দেখি তেল ঘিতে ভাজে।

উত্তরঃ মরিচ, কাশী, পুরী।


চৌদ্দ পুরুষ ডাকছে ‘মামা’ আমিও তাই ডাকি সকলেরই মামা তিনি নাম তার কি জানি?

উত্তরঃ চাঁদ-সূর্য।


 কোন ফলের বীজ নাই বল দেখি দাদা বলতে যদি না পারো তো বুঝবো তুমি হাঁদা।

উত্তরঃ নারিকেল।


এ হে হে হে হে তোমার গা ছুঁয়ে গেল কে? বুজতে পারলে বলুন কে সে? 

উত্তরঃ বাতাস।


পানির জন্তু নয় তবুও পানিতেই বাস করে হাত নেই পা নেই তবু সাঁতার কাটে।

উত্তরঃ নৌকা।


 তিন অক্ষরে নাম যার সবার ঘরে রয় প্রথম অক্ষর বাদ দিলে সর্ব লোকে খায়। পেট তার কেটে দিলে মধুর গান গায় শেষ অক্ষর বাদ দিলে খুব কামরায়

উত্তরঃ বিছানা।


বলুনতো এমন কোন সে বস্তু পৃথিবীতে নেই তোমার আমার মুখের কথায় তবু আছে সে-ই।

উত্তরঃ ঘোড়ার ডিম।


দু’অক্ষরে নাম তার বহু লোকে খায় শেষের অক্ষর বাদ দিলে হেঁটে চলে যায়। 

উত্তরঃ পান।


 তিন অক্ষরে নাম ব্যঞ্জনে দেয় তাহার প্রভাবে আহা, স্বাদ ভালো হয়। মাথা কেটে গেলে সে যে গণ্য হবে কাঠি পেট কেটে ময়লা সে, নয় পরিপাটি।

উত্তরঃ মশলা।


 দু’অক্ষরে নাম লজ্জা নিবারণী প্রথম অক্ষর বাদ দিলে হয় আমার জননী শেষের অক্ষর বাদ দিলে ভাশুর ঘরণী।

উত্তরঃ জামা।


 আগে যায় ফিরে চায় ওটি তোমার কে ওর শ্বশুরকে আমার শ্বশুর বাবা বলেছে। 

উত্তরঃ।


 কৃষ্ণবর্ণ তণুখান গুটি ছয় পা চুপচাপ রক্ত খায় নাহি কাটে রা।

উত্তরঃ উকুন।


 প্রাণ নেই বন্ধু নয়, চলে সাথে সাথে আলো পেলে তবে চলে দিনে কিংবা রাতে।

উত্তরঃ ছায়া।


 তিন অক্ষরে নাম তার প্রতি ঘরে পাবে অধ্যক্ষর বাদ দিলে বৎসর বুঝাবে মধ্য অক্ষর গেলে সবার ক্ষতি করে শেষের অক্ষর গেলে সবাই অবস্থান করে।

উত্তরঃ বাসন।


দুই অক্ষরের নাম যার সব যায়গায় রায় প্রথম অক্ষর বাদ দিলে খাবার জিনিস হয়, শেষের অক্ষর বাদ দিলে আপনজন হয়।

উত্তরঃ মাটি।


 দু’অক্ষরের নাম তার সবার ঘরে রয় প্রথম অক্ষর বাদ দিলে খাবার জিনিস হয় শেষের অক্ষর বাদ দিলে জন্মদাতা হয়।

উত্তরঃ।


 তিন অক্ষরে নাম তার মেয়েরা গায়ে মাখে প্রথম অক্ষর বাদ দিলে গাছ বেয়ে উঠে মাঝের অক্ষর বাদ দিলে গাছে ফলে থাকে। শেষের অক্ষর বাদ দিলে হাঁটার পথ থাকে। 

উত্তরঃ আলতা।


 বলতে পার কোন সে দেশ সূর্য উঠে না কোন সে দেশে জলও নাই মানুষ থাকে না।

উত্তরঃ সন্দেশ।


 তিন অক্ষর নাম, বাঙ্গালীরা খায় মাঝের অক্ষর গেলেও একই জিনিস হয়, প্রথম অক্ষর বাদ দিলে শীত পোশাক হয় শেষের অক্ষর বাদ দিলে চীনের খাদ্য হয়।

উত্তরঃ চাউল।


প্রাণীর দেহে থাকলে যা শেষ অক্ষর বাদ দিলেও তা মাথা কাটলে প্রাণহীন কি এ জিনিসটা?

উত্তরঃ চামড়া।


 হাত নেই পা নেই মুরো লেজ আছে যেখানে সেখানে ছোটে জলে মাঠে গাছে।

উত্তরঃ সাপ।


একদন্ত তবুও গণপতি নয় অতি বড় বপু তাতে প্রাণ নাহি রয় দুটি হাত পাতালের গভিরে তাহার কে বলিতে পারে এই হেঁয়ালির সার।

উত্তরঃ ঢেঁকি।


যা দিবে তাই খাবে পানি দিলে মরে যাবে।

উত্তরঃ চুলা।


তোমার ঘরে আমার ঘরে সবার ঘরে রয় প্রথম অক্ষর বাদ দিলে পানির রাস্তা হয় শেষের অক্ষর বাদ দিলে সবাই জ্ঞাত হয়। পেট কাটলে সবাই অস্থিত হয়। বলুনতো দিকি তা কি হয়?

উত্তরঃ জানালা।


 পেট ভরে না তবু খায় সর্ব প্রাণি প্রথম অক্ষর বাদ দিলে খেলার নাম হয়।

উত্তরঃ বাতাস।


 কোন সে গাছের নাম বল তুমি শুনি প্রথম অক্ষর বাদ দিলে বলে কথা গণি মাঝের অক্ষর বাদ দিলে ব্যবহার করে নারী।

উত্তরঃ বাবলা।


তিন অক্ষরে বর্ষা কি এলো মাথা কেটে কত লোক সারি বসে গেল পা কেটে চলে যায় বাতিলের দলে ঘনছায়া, সূর্যকে কিসে দেয় ঢেকে।

উত্তরঃ বাদল।


সাবান সোডা মাজন দিয়েও ময়লা নাহি যায় তিন অক্ষরে তারে ছাড়া রন্ধনে সংশয় হয়।

উত্তরঃ কয়লা।


মার্জনা করি আমি যত মলিনতা একশটি ভাই মিলে বোঝায় একতা। নারীর হাত থাকি আমি এত সম্মান তবুও শ্রদ্ধাহীন, কী আমার নাম?

উত্তরঃ ঝাঁটা।


 কোথাও কোন জল দেখিনা মাঠের মাঝে জল চার অক্ষরের নাম তার কী এমন সে ফল?

উত্তরঃ তরমুজ।


দিতে যদি দিতে হয় শ্বশুরকুলে দিই আর যদি দিতে হয় পরপুরুষে দিই বাপের ঘরে দেব কারে, লজ্জা করে ছিঃ তুমি আমার আমি তোমার তোমায় দেব কি?

উত্তরঃ ঘোমটা।


 বনের মাঝে আলো করা সুন্দর সে টিয়া সোনার মুকুট মাথায় দিয়ে এলো বাহিরিয়া।

উত্তরঃ আনারস।


 এখান থেকে দিলাম বৃষ্টি ঐ গাছটি বড়ই মিষ্টি

উত্তরঃ আখ গাছ।


আ-কার ই-কার হীন বলো কোন গ্রাম মোয়া হতে বল সোনা সেই গ্রামের নাম। 

উত্তরঃ জয়নগর।


 ওপর থেকে পড়ল ছুরি ছুরি বলছে ঘুরে পড়ি।

উত্তরঃ বাঁশপাতা।


 গণপতি নয় তবে সেও গুণধর একদন্ড বলা যায় লম্বা দেহ ধর।

উত্তরঃ ঢেঁকি।


 হাত নেই পা নেই সব মানুষকে ধরে প্রভাবে কাতর হয় মাথা নুয়ে পড়ে।

উত্তরঃ মাথা ধরা ।


 বাঁদিক পাবে পেটটি কেটে কাটলে মাথা -মূল্য তিন অক্ষরের প্রিয় খাবার নেই কিছু তার তুল্য

উত্তরঃ বাদাম।


তিন অক্ষরে নাম, কাঁচায় পাকায় খায় প্রথম অক্ষর বাদ দিলে প্রাণটা চলে যায়, শেষ অক্ষর বাদ দিলে মিষ্টি সে ফল ঝটপট এখন আমায় নামটা খুলে বল

উত্তরঃ আমড়া।


এমন একটি সুন্দর ফল উপরে তার ফিটফাট ভিতরে তার সদরঘাট।

উত্তরঃ মাকাল ফল।


 তিন অক্ষরে প্রাণী জলের পেট কাটলে নারীর গলে।

উত্তরঃ হাঙর।


 বলছো দুবার দাম ছুটছে নাকি ঘাম।

উত্তরঃ দরদর।


 ছোট ছোট বেনো বনে কত হরিণ চড়ে দশ শিকারীর দল খোঁজে তায় দুই শিকারী মারে।

উত্তরঃ উকুন।


 মা মেয়েতে একই সাথে নদীতে নাও বাইতে থাকে।

উত্তরঃ মাঝি (মা+ঝি)।


এক ঠোঙা, ফুল ওঠে মাথা বেঁকে থাকে রোদে পোড়ে জলে ভিজে চেন নাকি তারে। 

উত্তরঃ ছাতা।


পাঁচ মেয়েকে তুলে দিল বত্রিশ জনের ঘাড়ে দূরে ছিল কর্তা-দিদা টেনে নিল ঘরে।

উত্তরঃ খাবার খাওয়া।


ডগায় খসখসে গোড়ায় মধু বলতে না পারে যে সে এক ভোঁদু।

উত্তরঃ আখ।


 হাত নেই পা নেই তবু সে চলে অনাহরে মরে মানুষ এর অভাব হলে।

উত্তরঃ টাকা।


 শীত কালে যার নেইকো মান গ্রীষ্ম কালে পায় সু-সম্মান।

উত্তরঃ পাখা।


 জন্মে ছিল ফর্সা সাদা কাজের জন্য কালো এক ডুব খায় এক গাদা মাছ নামটি তাহার বল। 

উত্তরঃ জাল।


 কেমন স্বভাব তোর এ কেমন ধারা রাত্রে থাকিলে শুয়ে দিনে র’লি খাড়া। 

উত্তরঃ মাদুর।


 বর্ষাকালে তিন অক্ষরে আয়েশ করে খায় কাটলে মাথা সুন্দরীদের হাতে উঠে যায়।

উত্তরঃ খিচুড়ি।


এক দাঁড়া, বারো পা বলো কার আছে বাস করে জলে আর ডিম পাড়ে গাছে।

উত্তরঃ চিংড়ি।


চলতে চলতে খসলো শির মাথা কাটলে চললো ফির।

উত্তরঃ পেন্সিল।


গাছ নেই, শুধু পাতা মুখ নেই, কত কথা জীবন সঙ্গী করো যদিও পাও তার দেখা। 

উত্তরঃ বই।


 হাত নেই পা নেই নেইকো আকার জীবন ধারণে এর জুড়ি মেলা ভার

উত্তরঃ।


জলে থাকে তবু মাছ নয় মাছ বলে বাজারে বিক্রি হয়।

উত্তরঃ চিংড়িমাছ।


 শৈশবে সে বস্ত্রধারী যৌবনে উলঙ্গ বৃদ্ধকালে দাড়ির জটা মাঝখানে সুরঙ্গ।

উত্তরঃ বাঁশ।


 ঘর সে এমন নেই দুয়ার মাটি চাপা ছাদের পর নিঃশব্দে মানুষ বাস যায়না আলো, নেই বাতাস।

উত্তরঃ কবর।


আরো নতুন নতুন মজার ধাঁধা। পড়ুন এবং দেখুন।


Bangla Dhadha Uttor With Photo

Bangla Dhadha With Answers

Bangla Dhadha

 

88% LikesVS
12% Dislikes